Friday, May 31, 2024
- Advertisment -spot_img

বিশ্বের বিজ্ঞানীদের ক্রম তালিকায় স্থান করে নিলেন বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৪ জন গবেষক

নিজস্ব সংবাদদাতা, পশ্চিম মেদিনীপুর: মহানগরী কোলকাতা থেকে বেশ খানিকটা দূরে অবস্থিত হওয়া সত্ত্বেও বিজ্ঞান শিক্ষা এবং বিজ্ঞান গবেষণার ক্ষেত্রে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যাল। জঙ্গলমহলের জেলা বলে পরিচিত পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় অবস্থান সত্বেও সমস্ত সীমাবদ্ধতাকে দূরে ঠেলে বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরাও স্থান করে নিলেন জগৎ সভায়।সম্প্রতি প্রকাশিত বিশ্বের গবেষকদের তালিকায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন বা দু’জন নন, এক সঙ্গে ৩৪ জন গবেষক তাঁর গবেষণার জন্য বিশ্ব র‍্যাঙ্কিংয়ে স্থান পেলেন। প্রতি বছরই বিশ্বের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে যে সমস্ত বিষয়ে গবেষণা হয়, তা নিরিখে বিজ্ঞানীদের অবস্থান দেখা হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। বিশ্ব বিজ্ঞানী এবং বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাঙ্কিং এর তালিকা অ‌নুযায়ী দেখা গেল, বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৪ জন বিজ্ঞানী এই তালিকায় স্থান পেয়েছেন।বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরিখে দেখা গেল, প্রথম হয়েছেন নিউট্রোজেনোমিক্সের অধ্যাপক দেবীদাস ঘোষ। অঙ্ক বিভাগের অধ্যাপক মধুমঙ্গল পাল হয়েছেন দ্বিতীয়। বটানি বা উদ্ভিদ বিদ্যায় অধ্যাপক অমলকুমার মন্ডল তৃতীয় হয়েছেন। বায়োলজির অধ্যাপক সোমনাথ রায় চতুর্থ। আর পঞ্চম হয়েছেন অধ্যাপক কেশব চন্দ্র মন্ডল। এভাবেই বিভিন্ন বিভাগের ৩৪ জন গবেষক বিশ্বের তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন। বিশ্বের মধ্যেই অবশ্য খুব একটা পিছিয়ে নেই বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা। বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরিখে প্রথম স্থানে থাকা দেবীদাসবাবুর এশিয়াতে ৬২১২ তম স্থানে। আর বিশ্বে ৪৯১৬৮ তম স্থানে। মধুমঙ্গলবাবু এশিয়াতে ৬৩৯২ ও বিশ্বে ৪০৩১৭ তম স্থানে। অমলবাবু এশিয়াতে ৮৯০৬ ও বিশ্বে ৬৭৫০৪ তম স্থানে। সোমনাথবাবু এশিয়া র‍্যাঙ্কিংয়ে ১৩৭৩৩ ও বিশ্বে ৯৭৫৬১ তম স্থানে। আর কেশবাবু এশিয়াতে ১৪০৬৯ ও বিশ্বে ৯৯৪৪৬ তম স্থানে।বাকি যে সব বিজ্ঞানীরা স্থান পেয়েছেন তাঁরা হলেন, দেবীদাস ঘোষ, শ্যামলকুমার মন্ডল, ব্রজগোপাল বাগ, দেবদুলাল ব্যানার্জী, অমিয়কুমার পান্ডা, মইদুল হাসান, বিধানচন্দ্র পাত্র, অজয় মিশ্র, শঙ্করকুমার রায়, সুবলচন্দ্র মান্না, সুমনকুমার হালদার, সুদীপ্ত দোলই, অণির্বান বসু,কুন্তল চ্যাটার্জী, সুরজিৎ ঘোষ, সন্দীপ চট্টোপাধ্যায়, মনোজিৎ ভট্টাচার্য, রামকৃষ্ণ মাইতি, চিরঞ্জীব জানা, দ্বিপান্বিতা দত্ত, অমলকুমার মন্ডল, গনেশ ঘোড়ই, জ্যোতিশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়, চন্দ্রদীপা ঘোষ, শঙ্কর সাহু, অমিতাভ পাল, সুমনা সরখেল, অরূপ কুমার সরকার।এই তালিকার নামগুলি ক্রমান্বয়ে বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাঙ্ক অনুযায়ী রয়েছে।এই তালিকায় বিশ্বের মধ্যে প্রথম হয়েছেন হার্ভার্ড ইনিভার্সিটির রোনাল্ড সি কেসলার,দ্বিতীয় হয়েছে কুঙ্গপুক জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এইচ জে কিম, তৃতীয় হয়েছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়েরই জন ই ম্যানসন। বিশ্বের প্রথম দশজনের মধ্যে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়েরই তিনজন বিজ্ঞানী রয়েছেন।বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৪ জন বিজ্ঞানী এই তালিকায় স্থান করে নেওয়ায় খুশি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড.রঞ্জন চক্রবর্তীসহ গোটা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। খুশির হাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক-অধ্যাপিকা,গবেষক-গবেষিকা , ছাত্র-ছাত্রী মহল সহ গোটা বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে।খুশি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনীরাও। এই তালিকায় স্থান করে নেওয়া এবং বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় তিন নম্বর ক্রম পর্যায়ে থাকা বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বোটানির অধ্যাপক বিশিষ্ট উদ্ভিদবিজ্ঞানী ড.অমল কুমার মন্ডল এই খবরে উচ্ছ্বসিত। তিনি তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বর্তমান মহামারীর দুঃসময়ের মধ্য এই খবর তাঁদের কাছে খুবই আনন্দের এবং গর্বের। এটা তাঁদের দায়িত্ব আরও বাড়িয়ে দিল।

 

___

 

 

Despite being quite a distance from the metropolis of Kolkata, Vidyasagar University is advancing rapidly in the field of science education and science research. Despite its location in West Midnapore district, known as Jangalmahal district, scientists from Vidyasagar University also took a place in the Jagat Sabha, pushing away all limitations. Every year, the position of scientists is seen in terms of the research that is done in all the universities of the world. This time too he was no exception. According to the list of world scientists and university rankings, 34 scientists from Vidyasagar University have found a place in this list. From the point of view of Vidyasagar University, it was seen that Devidas Ghosh is the first Professor of Neutrogenomics. Professor of Mathematics Madhumangal Pal came second. Professor of Botany or Botany Amalkumar Mandal came third. Professor of Biology Somnath Roy IV. Professor Keshab Chandra Mandal came fifth. Thus, 34 researchers from different departments have taken placমেদিনীপুর list of the world. Scientists of Vidyasagar University are not far behind in the world. According to Vidyasagar University, Devidasbabu is in the first place and is in the 6212th place in Asia. And 4918th place in the world. Madhumangalbabu is ranked 8392nd in Asia and 40318th in the world. Amalbabu is ranked 6906th in Asia and 6504th in the world. Somnath Babu is ranked 13633 in Asia and 98581st in the world. The rest of the scientists are Devidas Ghosh, Shyamalkumar Mandal, Brajgopal Bagh, Devdulal Banerjee, Amiyakumar Panda, Maidul Hasan, Bidhanchandra Patra, Ajaybalman, Ajay Mishra, and the rest of the scientists are in the world. Haldar, Sudipta Dolai, Anirban Basu, Kuntal Chatterjee, Surjit Ghosh, Sandeep Chattopadhyay, Manojit Bhattacharya, Ramkrishna Maiti, Chiranjeev Jana, Dwipanbita Dutta, Amal Kumar Mandal, Ganesh Ghorai, Jyotish Shankar Bandav Arup Kumar Sarkar. The names of this list are according to the rank of Vidyasagar University. In this list, Ronald C. Kessler of Harvard University has become the first in the world, HJ Kim of Kungpuk National University has come second and John E. Manson of Harvard University has come third. Harvard University has three scientists in the top ten in the world. The entire university authorities, including the Vice Chancellor of the University, Prof. Dr. Ranjan Chakraborty, are happy that 34 scientists from Vidyasagar University have been included in this list. Khushi Hawa University professors, researchers, students, including the entire Vidyasagar University. Khushi University alumni. Dr. Amal Kumar Mandal, a prominent botanist and professor of botany at Vidyasagar University, who is ranked third in the list and is ranked number three on the list, is thrilled with the news. He said in his response that the news was a source of great joy and pride to them in the midst of the current epidemic. It further increased their responsibilities.

RELATED ARTICLES

कोई जवाब दें

कृपया अपनी टिप्पणी दर्ज करें!
कृपया अपना नाम यहाँ दर्ज करें

spot_img

Most Popular

Recent Comments