Sunday, April 14, 2024
- Advertisment -spot_img

ঝাড়গ্রামে সাঁওতালী ভাষার স্বীকৃতি দিবস উদযাপন

নিজস্ব সংবাদদাতা ,ঝাড়গ্রাম – ঝাড়গ্রামের রবীন্দ্র পার্কে ১৯ তম সাঁওতালী ভাষা স্বীকৃতি দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ভারত জাকাত খেরওয়াল আদিবাসী জুমিৎ গাঁওতা ঝাড়গ্রাম জেলা কমিটির পক্ষ থেকে। বুধবার সাঁওতালি ভাষার স্বীকৃতি দিবস উপলক্ষে ঝাড়গ্রাম শহরের ব্যানার হাতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। অলচিকি হরফের স্রষ্টা পন্ডিত রঘুনাথ মুর্মুর ছবিতে মাল্যদান করে অনুষ্ঠানটি শুরু করা হয়। ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিনপুর বিধানসভার বিধায়ক দেবনাথ হাঁসদা, সাহিত্যিক খেরওয়াল সরেন, লেখক সারদাপ্রসাদ কিস্কু, ঝাড়গ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি রেখা সরেন সহ আরো অনেকে।

ওই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিধায়ক দেবনাথ হাঁসদা বলেন ২০০৩সালের ২২ শে ডিসেম্বর তৎকালীন ভারত সরকার আদিবাসী ভাষাকে স্বীকৃতি দিয়েছিল ।তাই বাইশে ডিসেম্বর দিনটিকে আদিবাসী ভাষা স্বীকৃতি দিবস হিসেবে সারা দেশজুড়ে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পালন করা হয়। সেই জন্য ঝাড়গ্রাম শহরের রবীন্দ্র পার্কে যথাযথ মর্যাদার সাথে আদিবাসী ভাষার স্বীকৃতি দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন যে পন্ডিত রঘুনাথ মুরমু সাঁওতালি ভাষার অলচিকি হরফের স্রষ্টা । তিনি আমাদের মাঝে আর নেই।

ঝাড়গ্রামে সাঁওতালী ভাষার স্বীকৃতি দিবস উদযাপন

কিন্তু তিনি না থাকলে আমরা আমাদের মাতৃভাষাকে জানতে পারতাম না। তাই নতমস্তকে তিনি পন্ডিত রঘুনাথ মুরমু কে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ।সেই সঙ্গে আদিবাসী সম্প্রদায়ের প্রতিটি মানুষকে নিজেদের মাতৃভাষা কে বাঁচিয়ে রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার আহ্বান জানান। এছাড়াও তিনি বলেন রাজ্য সরকার অলচিকি হরফে সাঁওতালি ভাষায় স্কুল-কলেজে পঠন-পাঠন চালু করেছে। আগামী দিনে আদিবাসী ছেলেমেয়েদের সাঁওতালি ভাষায় পড়াশুনা কে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য রাজ্য সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে তিনি জানান।

সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় শোকজের মুখে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার বহু শিক্ষক

Next – মাওবাদী গতিবিধি বারায় ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশ তাদের ক্রীড়া প্রতিযোগীতা কে বিশেষ ভাবে সাজায় এবার

মাওবাদী গতিবিধি বারায় ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশ তাদের ক্রীড়া প্রতিযোগীতা কে বিশেষ ভাবে সাজায় এবার। সম্প্রতি মাওবাদী অনাগোনা বেরেছে ঝাড়গ্রাম জেলায়। গত কয়েকদিন অাগে মাওবাদী দের ডাকা বনধ্ এ সাড়া পরেছিলো ঝাড়গ্রাম জেলা জুড়ে। এর পরেই নড়ে চড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন। পুলিশের ডিসিপ্লিন ফেরানোর লক্ষ্যে তাদের ক্রিড়া প্রতিযোগিতা কে বিশেষ ভাবে সাজানো হয়েছে। গতকাল থেকে অাজ অনুষ্ঠানের শেষ পর্যন্ত কঠোর নিয়মানুবর্তিতা র মাধ্যমে অনুষ্ঠান সম্পন্ন করে পুলিশ ও যে চরম শতর্ক অাছে সেই বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়।

বুধবার সমাপ্তি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঝাড়গ্রামের প্রাক্তন সাংসদ ডাঃ উমা সরেন, বিনপুর বিধান সভার বিধায়ক দেবনাথ হাঁসদা এডিজি পশ্চিমাঞ্চল সঞ্জয় সিং, অাইজি বাঁকুড়া রাজ সেখরন, সহ বিশিষ্ট ব্যাক্তিরা। সমস্ত অফিসার থেকে সিভিক সকলেই বিভিন্ন ভাবে খেলায় অংশ গ্রহন করেন। হিট দা উইকেটে সফল হওয়া অাইজি পশ্চিমাঞ্চল সঞ্জয় সিং এর হাতে পুরষ্কার তুলে দেন ঝাড়গ্রাম এর প্রাক্তন সাংসদ ডাঃ উমা সরেন। মার্চপাষ্ট এর মাধ্যমে শেষ করা হয় ক্রিড়া প্রতিযোগিতা। তবে অন্যান্য বারের মতো বাজি পোড়ানো বা কোনো রকম উসৃঙ্খলাতা এবার বাতিল করে ডিসিপ্লিন পোগ্রাম এর মাধ্যমে বিশেষ বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়।

RELATED ARTICLES

कोई जवाब दें

कृपया अपनी टिप्पणी दर्ज करें!
कृपया अपना नाम यहाँ दर्ज करें

spot_img

Most Popular

Recent Comments