Friday, May 31, 2024
- Advertisment -spot_img

জামা-প্যান্ট খুলে অর্ধ নগ্ন অবস্থায় ধানের জমিতে লুকিয়েও লাভ হল না! খড়্গপুর-কাণ্ডে ঝাড়গ্রাম থেকে ৬ ডাকাতকে ধরল পুলিশ

অরূপ ঘোষ, ঝাড়গ্ৰাম: খড়গপুর গোলবাজারে সোনার দোকানে শুক্রবার ডাকাতির ঘটনায় পাঁচ জন দুষ্কৃতিকে গ্রেফতার করলো ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশ। এছাড়াও শনিবার সকালে গ্রামবাসী ও সিভিক ভলেন্টিয়ার্সদের তৎপরতায় জামুয়া আকনা গ্ৰাম আরো একজনকে গ্রেফতার করল বেলিয়াবেড়া থানার পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে অভিযুক্তের নাম অরিজিৎ সিং।জানা গেছে খড়গপুরের গোলবাজারে একটি সোনার দোকানে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে ডাকাতের দল ডাকাতি চালায়। বাধা দিতে গেলে এলোপাথাড়ি সোনা দোকানের মধ্যে গুলি চালায়। ডাকাতির পর সেখান থেকে তারা চম্পট দিলে তাদেরকে ধাওয়া করে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশ ও খড়গপুর লোকাল থানার পুলিশ। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশকে জানানো হয় ডাকাত দলটি ঝাড়গ্রামের দিকে প্রবেশ করতে পারে। সেই মতো ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশ গোপন সূত্রে জানতে পারে ডাকাত দলটি জাতীয় সড়ক ধরে

গোপীবল্লভপুরের উপর দিয়ে উড়িষ্যা রাজ্যে পালিয়ে যেতে পারে। খবর পেয়ে গোপীবল্লভপুর থানার আই. সি. সুদীপ ব্যানার্জী পুলিশ কর্মীদের নিয়ে গোপীল্লভপুরে ব্রিজের উপর নাকা চেকিং করে দুষ্কৃতিদের গাড়িকে দাঁড় করাতে গেলে গোপীবল্লভপুর থানার একজন পুলিশ কর্মীর উপর হামলা চালিয়ে গাড়ি নিয়ে পালায় দুষ্কৃতিরা। ওই ঘটনায় গোপীবল্লভপুর থানার একজন পুলিশ কর্মী আহত হয়। এরপর পুলিশ গাড়ি টিকে ধাওয়া করলে পাল্টা গাড়িটি ঘুরিয়ে বেলিয়াবেড়া থানার রান্টুয়া এলাকার দিকে চলে যায়। রান্টুয়াতে গাড়িটি কে পুলিশ ঘিরে ফেললে তারা গাড়ি ফেলে পালালেও গোটা এলাকা গোপীবল্লভপুর থানার পুলিশ ও বেলিয়াবেড়া থানার পুলিশ ঘিরে রাখে। এরপর ধান চাষের জমি দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে দুষ্কৃতীরা। শেষমেশ ধান চাষের জমিতে ড্রোন চালিয়ে চলে দুষ্কৃতীদের খোঁজ। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অপারেশন উত্তম ঘোষ ও হেডকোয়ার্টার কল্যান সরকার, গোপীবল্লভপুরের এস.ডি.পি.ও কৃষ্ণগোপাল মিনার নেতৃত্বে দুটি পৃথক দল ধান চাষের জমিতে তল্লাশি চালায় তাতেই প্রথমে গ্রেফতার ২জন। পরে আরো ৩ জনকে রান্টুয়া থেকে কিছুটা দূরে পাইকাম্বি ও বারোমানিয়া গ্রামে ধান চাষের জমি থেকে গ্রেফতার করা হয়। অর্থাৎ গাড়ির ড্রাইভার সহ পাঁচ জনকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জামা-প্যান্ট খুলে ধানের জমিতে লুকিয়েও লাভ হলো না দুষ্কৃতিদের। গাড়ি থেকে উদ্ধার হয় আগ্নেয়অস্ত্র। পাঁচ দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার করে নিয়ে আসা হয় গোপীবল্লভপুর থানায়। সেখান থেকে তাদেরকে তুলে দেওয়া হয় মেদিনীপুর জেলা পুলিশের হাতে। ওই সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পুলিশ আধিকারিকরা, গোপীবল্লভপুরের এসডিপিও কৃষ্ণ গোপাল মিনা,

গোপীবল্লভপুর থানার আইসি সুদীপ ব্যানার্জি, বেলিয়াবেড়িয়া থানার ওসি সুদীপ পালোধী সহ অন্যান্য আধিকারিকরা। যে পাঁচজন দুষ্কৃতীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে তারা হলেন রসন কুমার, সুজিত কুমার, নবীন কুমার, প্রকাশ কুমার ও গৌরব সিং, এদের প্রত্যেকের বাড়ি বিহারের বৈশালী জেলায়।ঝাড়গ্রামের পুলিশ সুপার অরিজিৎ সিনহা বলেন এটা ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশের বড় সাফল্য। তিনি আরও বলেন যে অভিযুক্ত ধৃত পাঁচ জন সহ উদ্ধার হওয়া গাড়ী সমেত সব কিছুই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ডাকাত দলকে ধরার জন্য ঝাড়গ্রাম পুলিশের যে বিশেষ টিম অপারেশন চালিয়েছে তাদেরকে ৬০ হাজার টাকা পুরস্কৃত করা হবে ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে। শনিবার সকালে জামুয়া আকনা গ্ৰামে ডাকাত দলের এক সদস্যকে দেখতে পান গ্রামবাসীরা।জামা প্যান্ট খুলে অর্ধ উলঙ্গ অবস্থায় ধান জমিতে ঘোরাফেরা করায় গ্রামবাসীদের সন্দেহ হওয়ায় তারা বেলিয়াবেড়া থানায় খবর দিলে বেলিয়াবেড়া থানার পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

RELATED ARTICLES

कोई जवाब दें

कृपया अपनी टिप्पणी दर्ज करें!
कृपया अपना नाम यहाँ दर्ज करें

spot_img

Most Popular

Recent Comments